বাংলাদেশ , শুক্রবার, ৫ জুন ২০২০

মহেশখালীতে সন্ত্রাসী-জলদস্যুর আত্মসমর্পণ অনুষ্ঠান আগামী ২৩ শে নভেম্বর

প্রকাশ: ২০১৯-১১-১৮ ০৮:৪৯:০৯ || আপডেট: ২০১৯-১১-১৮ ০৮:৪৯:০৯

রকিয়ত উল্লাহ, মহেশখালী : কক্সবাজারের মহেশখালীতে আগামী ২৩ নভেম্বর শনিবার সন্ত্রাসী ও জলদস্যুরা অনুষ্ঠানিক ভাবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণ করবেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল এমপির উপস্থিতিতে বহু সন্ত্রাসী বাহিনীর একাধিক সদস্য অস্ত্র ও গোলাবারুদসহ আত্মসমর্পণ করবেন বলে জানাগেছে। এটি মহেশখালীতে দ্বিতীয় দফায় এবং বড় দাগে সন্ত্রাসীদের আত্মসমর্পনের দ্বিতীয় অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ছাড়াও মহেশখালী-কুতুবদিয়ার এমপি আলহাজ্ব আশেক উল্লাহ রফিকসহ সরকার, প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত থাকবেন বলে জানাগেছে।আর ২৩ নভেম্বর এ অনুষ্ঠান সম্পন্ন হবে মহেশখালীর কালারমার ছড়া বাজার সংলগ্ন স্কুল মাঠে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কালারমার ছড়া ইউপি চেয়ারম্যান তারেক বিন ওসমান শরীফ।জানাগেছে -আনন্দ টিভির বিশেষ প্রতিনিধি সাংবাদিক আকরাম হোছাইন এর মধ্যস্থতায় উপকূলীয় বিভিন্ন সন্ত্রাসী বাহিনীর একাধিক সদস্য এবার আত্মসমর্পন করতে যাচ্ছে। এর আগেও প্রথম দফায় সাংবাদিক আকরাম হোছাইন এর মধ্যস্থতায় সন্ত্রাসী ও জলদস্যুরা আত্মসমর্পণ করে স্বাভাবিক জীবনের ফিরে এসেছে। তাই সাংবাদিক আকরাম হোছাইন ও সরকারের উপর ভরসা করে আবারও সন্ত্রাসীরা বিপুল পরিমাণ অস্ত্র, গুলাবারুদ ও মাদক নিয়ে আত্মসমর্পণ করতে যাচ্ছে। খুঁজ নিয়ে জানা যায় মহেশখালীতে সরকারের উন্নয়ন প্রকল্পের সর্ব বৃহৎ কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্প,এলএনজি টার্মিনাল, গ্যাস পাইপ লাইন, গভীর সমুদ্র বন্দরের মত বড় বড় মেঘা প্রকল্প বাস্তবায়ন করে চলছে।আর এসব প্রকল্প বাস্তবায়নের সুবিধার্থে সরকার মহেশখালীকে সন্ত্রাস ও জলদস্যু মুক্ত করার উদ্যোগ নিয়েছে। মহেশখালী – কুতুবদিয়ার সাংসদ আলহাজ্ব আশেক উল্লাহ রফিক এমপি বলেন আমার এলাকা বাংলাদেশের উন্নয়নের মডেল হিসেবে ঘোষণা করছে। এখানে সরকারের মেঘা মেঘা প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছে তাই আমার এলাকায় সুনাম ও শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।মহেশখালীতে কোন সন্ত্রাস ও জলদস্যুর স্থান হবে না। যারা আত্মসমর্পণ করতে যাচ্ছে তাদেরকে আমরা স্বাভাবিক জীবনের ফিরে আসার বিষয়ে সরকারের পক্ষে থেকে সহযোগিতা করার আশ্বাস দিয়েছি। মহেশখালী থানার ওসি জানান মহেশখালী শান্তি শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সবসময় সহযোগিতা করে আসছে। আত্মসমর্পণ এর বাহিরে ও যে সকল সন্ত্রাসী আছে তাদেরকে আইনের আওয়াতায় আনার জন্য চেষ্টা অব্যহত থাকবে। এদিকে আত্মসমর্পণ অনুষ্ঠান ঘিরে সাধারণ মানুষের মনে একধরনের শান্তি বিরাজ করতেছে। তারপরে ও কি মহেশখালীতে শান্তি ফিরে আসবে জনসাধারণের প্রশ্ন। মহেশখালীর সকলের আশা তারপরেও শান্তি ফিরে আসুক প্রিয় মহেশখালীতে।

ট্যাগ :