বাংলাদেশ , শুক্রবার, ৫ জুন ২০২০

করোনার প্রকোপে কৃষকরা তরমুজ বিক্রি নিয়ে বিপাকে

প্রকাশ: ২০২০-০৪-০৫ ০৮:০৭:১০ || আপডেট: ২০২০-০৪-০৫ ০৮:০৮:৪৯

অনলাইন রিপোর্ট: তরমুজের বাম্পার ফলন হলেও করোনার প্রকোপে ক্রেতা সমাগম না থাকায় কৃষকসহ বিক্রেতারা বিক্রি নিয়ে বিপাকে পড়েছে। উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, বিভিন্ন ইউনিয়নে ৪শ” ৫০হেক্টর জমিতে এবার তরমুজের চাষাবাদ হয়েছে। ইতোমধ্যে ক্ষেতের ফসল কোথাও পেকেছে আবার অনেক ক্ষেতে পাকার উপক্রম হয়েছে। চর-অঞ্চল তরমুজের চাষাবাদ অন্যান্য এলাকার তুলনায় বেশি হয়েছে। নভেম্বর থেকে ডিসেম্বরে এর চাষাবাদ শুরু করে কৃষক। গাছে ফলন ধরা থেকে ৪৫দিনের মধ্যে ফলন দেখা দেয়। এই বছর প্রথম অবস্থায় ক্ষেত ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের আঘাতে লন্ডভন্ড হলে কোন কোন কৃষক জানুয়ারির শেষের দিকে আবার অনেকে ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহে দ্বিতীয়বার চাষাবাদ শুরু করেন। অত্র উপজেলায় বিভিন্ন প্রজাতির তরমুজের ফলন ভাল হয়। তাই এ অঞ্চলে চাষাবাদ বেশি করেন সংশ্লিষ্টরা। বিগত বছরের তুলনায় এ বছর ব্যাপক ফলন হয়েছে। এসব তরমুজ ঢাকা, রাজশাহী, চট্টগ্রাম, দিনাজপুর, রংপুর, বরিশালসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার আড়ৎদাররা ক্ষেত থেকে কিনে ট্রাক বোঝাই করে নিয়ে যান। তরমুজ পাকতে শুরু করলে কয়েকশ ট্রাক অপেক্ষমান থাকে উৎপাদিত এলাকায়। এ বছর করোনা ভাইরাসের ভয়ে আড়ৎদাররাও আসছেন না তরমুজ ক্রয়ে। অপরদিকে কৃষকদের আড়ৎদারদের কাছ থেকে নেওয়া দাদনের বোঝাও বেড়ে চলেছে। অনেকের ক্ষেতে তরমুজ পেকে ফেটে যাচ্ছে বলেও জানিয়েছেন একাধিক কৃষক।
এই ব্যাপারে হাজীরহাট গ্রামের একাধিক চাষি জানান, তাদের খেতে তরমুজ পেকে আছে কিন্তু ক্রেতা সংকটে বিক্রি করতে পারছে না। তাদের ক্ষেতের তরমুজ বিক্রির উপযোগী হয়ে আছে। করোনা ভাইরাসের প্রকোপ না কমলে ক্রেতার অভাবে লোকসান গুনতে হতে পারে বলেও জানান। এদিকে গোলখালী এলাকায় প্রতি বছরের মত এ বছরও ভালো ফলন হয়েছে ক্ষেতের ফসল আগে ভাগেই পেকে গেছে। ক্রেতার অভাবে বিক্রি করতে পারছেন না বলে ক্ষেতেই ফেটে যাচ্ছে তরমুজ। তারা আরও জানান, ধান চাষের চেয়ে তরমুজ চাষে লাভ বেশি বিধায় এলাকার কৃষক তরমুজ চাষাবাদ করছেন। তাদের অনেকে ব্যাংক লোন কিংবা বিভিন্ন এনজিও থেকে লোন নিয়ে বিনিয়োগ করে ফসল উঠার পর তা পরিশোধ করে দেন। এই বছর করোনা ভাইরাস তাদের পিছিয়ে দিয়েছে।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ বনি আমিন খান জানান, গত বছরের তুলনায় এ বছর ব্যাপক ফলন হলেও বিক্রি নিয়ে বিপাকে পড়েছেন কৃষক। পাকা ফল সময়মতো বিক্রি করতে না পারলেও তাতে পচন ধরার সম্ভাবনা রয়েছে।
ক্যাপশনঃদশমিনা(পটুয়াখালী): উপজেলায় তরমুজের বাম্পার ফলন হলেও করোনার প্রকোপে ক্রেতা সমাগম না থাকায় কৃষকসহ বিক্রেতারা বিক্রি নিয়ে বিপাকে পড়েছে

ট্যাগ :