বাংলাদেশ , বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০

শাপলাপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি প্রার্থী সালাউদ্দিন

প্রকাশ: ২০২০-০৯-১২ ০৩:৩২:২২ || আপডেট: ২০২০-০৯-১৩ ১৫:২৩:০৫

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ আর মাত্র কয়েকদিনের অপেক্ষা।মহেশখালী উপজেলার শাপলাপুর ইউনিয়ন শাখার ছাত্রলীগ কমিটি-২০২০’র সভাপতি প্রার্থী হয়েছেন রাজপথের সাহসী যোদ্ধা, স্কুল পর্যায়ে কেবিনেট নির্বাচনের সভাপতি,ওয়ার্ড় পর্যায়ে ছাত্রলীগ কর্মীদের নেতৃত্বদানকারী,সেই থেকে বেড়ে উঠা বিপ্লবী ছাত্রনেতা ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি ও জঙ্গী প্রতিরোধ কমিটির সহ সভাপতি জনাব রশিদ আহমদ (সাবেক মেম্বার) এর ছেলে সালাউদ্দীন। তাছাড়া সে ইউনিয়ন ছাত্রলীগ কর্মীদের পরিচিত মুখ,তৃণমূল পর্যায়ে ছাত্রলীগের অহংকার, মেধাবী ও পরিশ্রমী, সৎ ও যোগ্য।
তিনি শাপলাপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি-২০১৮ এ পাশ করেছেন এবং বর্তমান বাংলাদেশ নৌবাহিনী ক্যান্টনমেন্ট কলেজে অধ্যায়নরত অবস্থায় আছেন।
সভাপতি প্রার্থী সালাউদ্দীন জানান, “বাংলাদেশ ছাত্রলীগ” বাংলাদেশের একটি প্রধান রাজনৈতিক ছাত্র সংগঠন। এ সংগঠনের মূলনীতি শিক্ষা, শান্তি ও প্রগতি-এই স্রোতধারা সামনে রেখে,পৃথবীবরেণ্য অবিসংবাদিতা নেতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আর্দশে উজ্জীবিত হয়ে,মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেশ প্রেমের বাণী তৃণমূল পর্যায়ে সুনিপুণভাবে পৌঁছে দেওয়ার অঙ্গীকারে শাপলাপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগ কমিটি-২০২০’র সভাপতি প্রার্থী হয়েছি। তিনি আরও বলেন,মহেশখালী উপজেলার ছাত্রলীগের অন্যতম অবিভাবক ও বর্তমান উপজেলা শাখার ছাত্রলীগ সভাপতি শ্রদ্ধেয় জনাব হালিমুর রশিদ ভাই আমাকে এই সুযোগ দিলে শাপলাপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগ শাখাকে প্রশংসার রোল মডেলে পরিণত করব এবং সংগঠনের সুনাম রক্ষার জন্য আমরণ চেষ্টা চালিয়ে যাব ইনশাআল্লাহ।
শাপলাপুর ইউনিয়ন শাখার ছাত্রলীগ কর্মীরা জানান, সভাপতি পদের জন্য সালাউদ্দীনই শতভাগ যোগ্য পার্থী। সংগঠনের নিয়মকানুন রক্ষা করা ও নেতৃত্ব দেয়ার ক্ষমতা একমাত্র তারই আছে। কারণ সে সৎ চরিত্রে অধিকারী নেতৃত্বগুণাবলি সম্পন্ন ছাত্র।তারা আরও বলেন, অন্য পার্থীরা ক্ষমতালোভী ও বিবেদ সৃষ্টিকারী। নির্বাচিত হলে তাদের মধ্যে কেউ সংগঠনের সুনাম রক্ষা করতে পারবে না।বরং কমিটি প্রদানকারীর মান মর্যাদা ক্ষুণ্নসহ সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট করবে। তাছাড়া অনেকে চাঁদাবাজির সাথে জড়িত রয়েছেন বলেও জানান।
ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ডাক্তার ওসমান সরওয়ার জানান, একজন ইউনিয়ন ছাত্র ছাত্রলীগ শাখার সভাপতি হওয়ার জন্য যে যোগ্যতা দরকার সেগুলো সালাউদ্দিনের মধ্যে নিহিত রয়েছে।কারণ সে ত্যাগী সৈনিক ও রাষ্ট্রীয় সব প্রোগ্রামে সংগঠনের সবার সাথে সম্মিল্লিত হয়ে অংশগ্রহণ করতে দেখা যায়। নম্র-ভদ্র ও সৎ চরিত্রের অধিকারী বলেও জানান।
শাপলাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নৌকা প্রতীকে নির্বাচিত জনাব এডভোকেট আব্দুল খালেক চৌধুরী বলেন, এবার জামায়াত-বিএনপির ছেলে ছাত্রলীগের সভাপতি পদে পার্থী হয়েছেন। তারা ছাত্রলীগে অনুপ্রবেশকারীর মতো। পরে সভাপতি নির্বাচিত হয়ে কুর্কমে জড়িয়ে পড়লে এসবের দায়ভার কে নেবে? সরকারের ভাবমূর্তি যাতে নষ্ট না হয় সেদিক খেয়াল রেখে ইউনিয়ন কমিটি দেয়ার জন্য অনুরোধ করলেন চেয়ারম্যান মহোদয়।তিনি বলেন, সময়ে না দিলে চাষ তাহার দুঃখ থাকে বার মাস।সালাউদ্দিন যেহেতু আওয়ামী পরিবারের সন্তান সেহেতু সততার সাথে কাজ করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন তিনি।
তাছাড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক জনাব জসিম উদ্দিনও সালাউদ্দিনের চরিত্র, মেধা ও নেতৃত্বের প্রশংসা করেন।তার রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ আছে বলেও জানান তিনি। ছাত্রনেতা হিসেবে সুনিপুণভাবে বক্তৃতা প্রদান করতে পারে বলে ইউনিয়নে এক দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।
উল্লেখ্য, ছাত্রলীগ সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন হিসেবে স্বীকৃত। ১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফজলুল হক হলের অ্যাসেম্বলি হলে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠা করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।প্রতিষ্ঠার পর থেকে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ বিভিন্ন সময়ে বাংলাদেশের বিভিন্ন অধিকার সংক্রান্ত আন্দোলনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছে।

ট্যাগ :