বাংলাদেশ , বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০

কলাতলিতে বসতভিটা দখলে নিতে আরিফ-কাদের বাহিনীর প্রকাশ্য অস্ত্রের মহড়া: নিরাপত্তাহীনতায় ২০ পরিবার

প্রকাশ: ২০২০-১০-০৩ ১৮:৪০:৪১ || আপডেট: ২০২০-১০-০৩ ১৮:৪০:৪১

গণসংযোগ রিপোর্টঃ কক্সবাজার শহরের কলাতলীতে বসতবাড়ি দখলে নিতে মরিয়া হয়ে উঠেছে দুর্র্ধষ সন্ত্রাসী ও ভুমি খেকো আরিফ-কাদের বাহিনী। প্রতিদিন সন্ধ্যার পর থেকে ২টি মাইক্রোবাস যোগে অস্ত্র সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে প্রকাশ্যে মহড়া দিয়ে যাচ্ছে তারা। যে কোন সময়ে ঝটিকা হামলার আশংকায় চরম নরিাপত্তাহীনতায় রয়েছে বসবাসকারী ২০ পরবিার । কলাতলী বাইপাস সড়কের টিএন্ডটি টাওয়ার সংলগ্ন এলাকায় বসতভিটা দখলে নিতে সন্ত্রাসীরা ফিল্মী স্টাইলে অস্ত্রের মহড়া চালিয়ে যাচ্ছেন বলে জানা গেছে। এ ব্যাপারে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় নিরাপত্তা চেয়ে পৃথকভাবে জিডি ও অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।
ভুক্তভোগীরা জানান, বিগত প্রায় ১২ বছর ধরে উক্ত জমিতে বসবাস করে আসছেন জেলার বিভিন্ন স্থানের জলবায়ু উদ্বাস্তু ২০টিরও অধিক পরিবার। বিগত কয়েক বছর আগে উক্ত জমির লিজ চেয়ে কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের নিকট আবেদন করেন ২০টি পরিবার। আবেদনটি দীঘদিন ফাইল বন্দী থাকায় উচ্চ আদালতে রীট করেন তারা । যার রীট পিটিশন নং-১০৩৫৪/১৮। রীট মামলাটির শুনানীকালে মহামান্য সুপ্রীম কোর্ট আবেদনকৃত ২০ পরিবারকে ৫শতক করে মোট এক একর জমি লীজ বন্দোবস্তি দেয়ার নির্দেশ দেন কক্সবাজার জেলা প্রশাসককে। কক্সবাজার জেলা প্রশাসক আদেশটি বাস্তবায়ন করতে কক্সবাজার সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) কে নির্দেশ দেন। কিন্তু তৎকালীন সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) নানা অজুহাতে সময় ক্ষেপন করতে থাকলে এবং একই সময় কক্সবাজারের বিভিন্ন স্থানে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালিত হওয়ায় বসত ভিটা রক্ষায় পুনরায় মহামান্য সুপ্রীম কোর্টে কনটেম্পট পিটিশন দায়ের করেন ভুক্তভোগী ২০ পরিবার। কনটেম্পট পিটিশন নং-৬৫/২০। এই পিটিশনের প্রেক্ষিতে উচ্চ আদালত ২০ পরিবারকে কোন প্রকার উচ্ছেদ না করার জন্য এবং বন্দোবস্তি প্রদান পূর্বক উচ্চ আদালতে ফিরতি রিপোর্ট দাখিলের নির্দেশ দেন কক্সবাজার জেলা প্রশাসক, সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি), তহশীলদার (সদর)সহ সংশ্লিষ্ট সকলকে। যার কার্যক্রম বর্তমানে চলমান রয়েছে।
২০ পরিবারের পক্ষে মহামান্য হাই কোর্টে দায়ের করা মামলার বাদী মো: আয়াজ বলেন- বিষয়টি সুপ্রীম কোর্টে বিচারাধীন থাকলেও পেকুয়া উপজেলার বাসিন্দা চিহ্নিত ভুমিদস্যু আরিফ-কাদের বাহিনী কক্সবাজারে এসে উক্ত জলবায়ু উদ্বাস্তু ২০ পরিবারের বসত ভিটা দখলে নিতে প্রকাশ্যে অস্ত্রের মহড়া চালিয়ে যাচ্ছে। প্রতিদিন সন্ধ্যার পর থেকে জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে দুর্র্ধষ সন্ত্রাসীদের ভাড়া করে এনে আমাদের বসত ভিটা দখল করার পাঁয়তারা চালিয়ে যাচ্ছে। যে কোন সময় আমাদের উপর হামলা করতে পারে তারা। আয়াজ আরো বলেন-আমরা বর্তমানে চরম নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছি।
এ ব্যাপারে জানতে কক্সবাজার সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মোমিনুল গিয়াস বলেন, আমি নতুন যোগদান করেছি। বিষয়টি সম্পর্কে আমি অবগত হয়েছি। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়া পুলিশের পেট্টোল টীম সর্বক্ষন প্রস্তুত রয়েছে।

ট্যাগ :